আউট হননি, শতভাগ নিশ্চিত তামিম

আউট হননি, শতভাগ নিশ্চিত তামিম

ক্রীড়া ডেস্ক :: অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি ক্রিকেটার স্টিভ ওয়াহকে ছাড়িয়ে যাওয়ার পথে ছিলেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

৫২ রান যোগ করতে পারলেই সাবেক অসি তারকাকে ছাপিয়ে যেতেন।  ১৭ রান জমাও করেছিলেন। এরইমধ্যে দুশমন্থ চামিরার অফ স্টাম্পের বাইরের বল খেলে উইকেটরক্ষক ডিকভেলার গ্লাভসবন্দী হয়ে সাজঘরে ফেরেন।

যদিও তামিম মনে করেন, আউট হননি তিনি। রিভিউ নিয়েছিলেন।  তাতে কাজ হয়নি। সাজঘরে ফিরতেই হয়েছেন তাকে।

এরপরও নিজের দাবিতে অটল বাংলাদেশ অধিনায়ক। তার দাবি, সেটি নট আউট ছিল।  বল ব্যাটে লাগেনি, শতভাগ নিশ্চিত তামিম।

নিজের আউট নিয়ে প্রশ্ন উঠলে ম্যাচশেষে তামিম বলেন,  অনেক হতাশাজনক।  কারণ আমি শতভাগ নিশ্চিত যে ওটা আমি খোঁচা দেইনি। ওটা রিভিউতে গেল।  আমার ব্যাট আর মাটিতে যখন লাগে আর বল তখন খুব ক্লোজ ছিল। আউটের সিদ্ধান্ত বদলে দেওয়া অনেকটা অসম্ভব ছিল। মাঠের আম্পায়ার নট আউট দিলে ভিন্ন কিছু হতে পারত।

তামিমের বক্তব্যের সঙ্গে রিভিউয়ে দেখা রিপ্লেতে মিল আছে।

রিভিউতে দেখা গেছে,  তামিমের ব্যাট যখন মাটি স্পর্শ করছিল ঠিক তখনই বল ব্যাট পার করে যাচ্ছে। আল্ট্রাএজে শনাক্ত হওয়া শব্দ ব্যাটের সাথে মাটির সংঘর্ষ না ব্যাট-বল স্পর্শের সেটা নিয়ে সংশয় ছিল অনেকের মাঝে। থার্ড আম্পায়ারের কাছে মনে হয়েছে ব্যাট স্পর্শ করেই গিয়েছিল বল।

উল্লেখ্য, তামিমের আউটটি ছিল শুক্রবারের শেষ ম্যাচের ভাইটাল পয়েন্ট।

শ্রীলংকার ২৮৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে চামিরার বোলিং তোপে পড়ে প্রথম চার ওভারেই দুই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। 

এরপর তামিম ও মুশফিকুর রহিম মিলে বিপর্যয় সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও ইনিংসের দশম ওভারে তামিম বিদায় নেয়। 

তামিমের আউটের পর একেবারে খাদের কিনারায় চলে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি টাইগাররা।

প্রথম দুই ম্যাচে দাপুটে জয় বাংলাদেশ শেষ ম্যাচে হারে ৯৭ রানে।

সিলেট প্রতিদিন/এমএ