ওসমানীনগরে নির্যাতিত প্রতিবন্ধীকে ঘরে তুলে দিলেন পুলিশ সুপার

ওসমানীনগরে নির্যাতিত প্রতিবন্ধীকে ঘরে তুলে দিলেন  পুলিশ সুপার

প্রতিদিন প্রতিবেদক :: ওসমানী নগরের তাহেরপুর গ্রামে এক বাক  প্রতিবন্ধীকে হয়রানি, হুমকি ঘর ছাড়া করার অভিযোগ  উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে তাহেরপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের ছেলে প্রতিবন্ধি লেচু মিয়া ওসমানী নগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলর প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে নির্যাতিত প্রতিবন্ধী ও তার পরিবারকে পূনরায় বসত ঘরে থাকার ব‍্যবস্থা করেছেন। পাশাপাশি  দুই আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

জানা যায়, ওসমানীনগর থানা দিন ওসমানপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত তাহিরপুর গ্রামের দুই বাকপ্রতিবন্ধী আপন ভাই লিচু এবং খালিস মিয়াকে গতকাল তার চাচা মাসুক উদ্দিন এবং সহযোগী সিরাজসহ পৈত্রিকভূমিতে পৈতৃক বাড়ি থেকে তাদেরকে বের করে দেয়। উক্ত ঘটনা জানার পর গতকাল রাতে বাকপ্রতিবন্ধী লিচু মিয়াকে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের একটি গ্রামে তাদের আত্মীয় বাসায় পাওয়া যায়।  রাতেই থানা পুলিশের সহযোগিতায় লিচু মিয়াকে তাদের ঘরে উঠিয়ে দেয় ওসমানীনগর থানা পুলিশ লিচু মিয়ার স্ত্রী এবং সন্তান এবং তার অপর বাকপ্রতিবন্ধী ভাই খালিস মিয়াকে খুঁজে বের করে তাদের পৈত্রিক বাড়ি বসতভিটা থেকে উঠিয়ে দেন এসপি ফরিদ। 

এসপি ফরিদ উদ্দিন জানান, আমি নিজে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এসময় ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আতোয়ার রহমান এবং ওসমানীনগর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং ওসমানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ উপস্থিত ছিলেন গতকাল রাতে এ ঘটনায় ওসমানী নগর থানায় একটি মামলা হয় এবং ওই বাড়িতে অবস্থানকারী কাদের মিয়াকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

জানা যায় লন্ডনপ্রবাসী মাসুক উদ্দিন এবং তার আত্মীয় সিরাজ মিলে বাকপ্রতিবন্ধীদের কে তাদের পৈত্রিক ভূমি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য জাল দলিল সৃজন তাদের সাথে প্রতারণা করে এ সময় তারা সিলেট থেকে কাদেরের নামক একজন লোকের পরিবারসহ বাকপ্রতিবন্ধীদের ঘরে উঠিয়ে দেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়,   গত বিশ নভেম্বর লেচু মিয়ার লন্ডন প্রবাসী চাচার বাসার কেয়ারটেকার মামলার  এক নং বিবাদি মৌলভীবাজারের মিরপুর গ্রামের ইলাশ মাষ্টারের ছেলে সিরাজ মিয়া প্রতিবন্ধী লেচু মিয়ার ঘরে ঢুকে বাড়ি ছাড়তে বলে। হুমকি মারধর ও প্রতিবন্ধী ভাতার জমানো নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়। বেশি বাড়াবাড়ি করলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়।  এক পর্যায়ে তাদের  ঘর থেকে বের করে দেয়া হয়। 
 এমন অমানবিক ঘটনার খবর  শুনে সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন ঘটনাস্থলে  উপস্থিত  হন। 

তার নির্দেশে দুই আসামীকে আটক করে পুলিশ। 

মামলার  এজাহার সূত্রে আরো জানা যায়, বিষয়টি নিয়ে  স্থানীয় ব‍্যক্তিবর্গ নিয়ে সমাধানের চেষ্টা করলেও সমাধান হয়  হয় হয় নি। এদিকে মামলা দায়েরের পথ প্রতিবন্ধীকে হয়রানি ও হুমকির ঘটনায় তাৎক্ষণিক স্বয়ং এগিয়ে আসেন পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন।

সিলেট প্রতিদিন/এমএ