কোনতা অইলেউ গাড়ি ফাতাইর করিও না : আজাদ

কোনতা অইলেউ গাড়ি ফাতাইর করিও না : আজাদ

প্রতিদিন প্রতিবেদক :: পরিবহণ শ্রমিকদের উদ্দ্যেশ্যে সিসিক কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ বলেন, কোন কিচ্ছু ঘটলেও গাড়ি রাখিয়া রাস্তা বন্ধ করা ঠিক না। যখন আপনার কোন আত্মীয়-স্বজন রাস্তা বন্ধ থাকার কারনে ভোগান্তির শিকার অইবা তখন আপনারা বুঝবা রাস্তা বন্ধ করলে কিতা অয়। তাই ‍“কোনতা অইলেউ গাড়ি ফাতাইর করিও না”।

রোববার রাতে সিলেট নগর ভবনে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নেতৃবৃন্দ ও শ্রমিক নেতাদের সাথে বৈঠকে সময় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, রাস্তা বন্ধ করাও সমাধান নায়। আমরা আপনারা সবাই একই জায়গার মানুষ তাই সবাই মিলে মিশে উন্নয়নে ভূমিকা রাখা দরকার।

এদিকে রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে দুই দফায় প্রায় ৩ ঘন্টা দীর্ঘ বৈঠক শেষে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। চৌহাট্টার ঘটনায় রজু হওয়া তিনটি মামলা আইনানুগ প্রক্রিয়ায় দ্রুত নিষ্পত্তি করা এবং ক্ষতি গ্রস্থ পরিবহন মালিকদের ক্ষতিপূরনে সহায়তা করা।

সিলেট সিটি কর্পোরেশরনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে সিলেট ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যান পরিষদের নেতৃবৃন্দ উদ্দ্যোগে বৈঠকে পরিবহন শ্রমিক-মালিক প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী প্রতিনিধি, সুশিল সমাজের প্রতিনিধি, সাংবাদিক, কাউন্সিলরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


বৈঠকের এক পর্যায়ে ঘটনা নিশপ্তির লক্ষ্যে কাউন্সিলর, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী ও পরিবহন শ্রমিক-মালিক প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে ১৬ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়।


কমিটির সদস্যরা হলেন, আলহাজ্ব শেখ মখন মিয়া চেয়ারম্যান, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আল আজাদ, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, সিলেট চেম্বারের সভাপতি এটিএম শোয়েব, কাউন্সিলর মখলিসুর রহমান কামরান, কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম, কাউন্সিলর সৈয়দ তৌফিকুল হাদী, সিলেট মহানগর ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যান পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান রিপন, সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম হাদী ছয়ফুল, সিলেট জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি মো. আবুল কালাম, সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. জিয়াউল কবীর, সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাজী মঈনুল ইসলাম, সিলেট মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি এম শাহরিয়ার কবীর সেলিম, মো. আতিকুর রহমান ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা আবু সরকার।


এই কমিটি ঘটনা সমঝোতার লক্ষ্যে উপরে উল্লেখিত সিদ্ধান্ত সমূহ নেন এবং তাদের পক্ষে সভায় সিদ্ধান্ত সমূহ উপস্থাপন করেন আলহাজ্ব শেখ মখন মিয়া। এতে সবাই ঐক্যমত পোষন করেন।
পরে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সবাইকে ধন্যবাদ জানান এবং নগররীর উন্নয়নে সর্বস্থরের নাগিরিকদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহবান জানান।
সোমবারের পরিবহন শ্রমিক ধর্মঘট প্রত্যাহার করায় পরিবহন শ্রমিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান সিসিক মেয়র।


এছাড়া বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন, সিলেট স্টেশন ক্লাবের সভাপতি সদর উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, ওয়ার্কাস পার্টির সভাপতি সিকান্দর আলী, বেসরকারী ক্লিনিক-হাসপাতাল সমিতির সভাপতি ডা. নাসিম আহমদ, সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য এমরান আহমদ চৌধুরী, সিসিক কাউন্সিলর আজম খান, কাউন্সিলর রেজাউল হাসান লোদী, কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিম, কাউন্সিলর রাশেদ আহমদ, কাউন্সিলর মো. ছয়ফুল আমীন, কাউন্সিলর আফতাব হোষেন খান, কাউন্সিলর মো. ইলিয়াসুর রহমান, কাউন্সিলর রকিবুল ইসলাম ঝলক, কাউন্সিলর মো. আব্দুর রকিব তুহিন, কাউন্সিলর আব্দুল মহিত জাবেদ, কাউন্সিলর এসএম শওকত আমীন তৌহিদ, কাউন্সিলর তাকবির ইসলাম পিন্টু, কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ, কাউন্সিলর কুলসুমা বেগম পপি, সিলেট প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ রেনু, সিলেট অনলাইন প্রেস ক্লাবের সভাপতি মুহিত চৌধুরী, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, বাপা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সিলেট প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকরামুল কবীর, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম চৌধুরী সহ পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) থেকে সিলেট জেলায় পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেন সিলেট জেলা বাস মিনিবাস মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন (১৪১৮) নেতৃবৃন্দ। বিষয়টি সমাধানের জন্য দুপক্ষের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সিসিক নেতৃবৃন্দ, বাস ট্রাক মালিক সমিতি, শ্রমিক সমিতি, চেম্বার অব কমার্সের নেতৃবৃন্দসহ পরিবহণ সেক্টরের প্রতিনিধিবৃন্দ। এছাড়াও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

এসএএম