কোন পথে সিলেটের ছাত্রলীগ!

কোন পথে সিলেটের ছাত্রলীগ!

সাজলু লস্কর :: 

সিলেটে শক্তিশালী একটি ভিত ছিল ছাত্রলীগের। ছিল সংগ্রামের স্বর্ণালী অধ্যায়। অবশ্য সেই অধ্যায় এখন থমকে আছে। তবুও থেমে নেই । ত্যাগের ব্রতী নিয়ে প্রস্তুত হাজারো কর্মী। শুধু নেই ফ্ল্যাটফরম। কবে হচ্ছে-তার উত্তরও জানানেই কারো কাছে। ত্যাগীদের নিবেদন কেবল একটিই-অন্তত সুন্দর একটি পরিচ্ছন্ন প্রজন্মের স্বার্থে ছাত্রলীগকে প্রস্তুত করতে হবে। এর জন্য প্রয়োজন সাংগঠনিক তৎপরতা।  

কমিটি নেই দীর্ঘদিন থেকে। হচ্ছে হবে বলে পার হয়েছে কয়েক বছর। নেতা হবার দৌড় থেকে দীর্ঘসুত্রিতার কারনে ছিটকে পড়েছেন অনেকে।অনেক সম্ভাবনাময় নেতৃত্ব হারিয়ে গেছে দায়িত্বশীল নেতাদের খামখেয়ালীর কারনে।কেউ পাড়ি জমিয়েছেন প্রবাসে আবার কেউ সংসারে বুজা হয়ে এখনো অন্য সহযোগী সংগঠনে ডুকার রাস্তা খোজছেন।

তবে সেটিও যে হবে হচ্ছের বৃত্তে বন্দি। সিলেট জেলা ও মহানগর যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি কবে হবে তাও কেউ জানে না, দায়িত্বশীলদের এক  বক্তব্য পার হয়েছে বছর' কেন্দ্রের অনুমতি পেলে আমরা পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দিতে প্রস্তুত' প্রস্তুতির মধ্যেই 'মুলা জোলছে  যুবলীগের কমিটিও।

সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবার পর সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি খোব দ্রুত সময়ের মধ্যে হয়ে যাবে এমনটাই কেন্দ্র থেকে আবাস দেয়া হয়েছিলো।কিন্তু এখনও নেয়া হয়নি কার্যত কোন উদ্যোগ।

সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের অনেকেই হতাশা প্রকাশ করে বলেন,এভাবে সংগঠন চললে একটা সময় সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা রাজনীতি বিমুখ হয়ে পড়বে।সিলেটের রাজনীতি নিয়ে স্থানীয় থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতাদেরও কোন মাথা ব্যাথা নেই। 

তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের একটি দায়িত্বশীল সুত্র সিলেট প্রতিদিনকে জানায়,খোব দ্রুত সময়ের মধ্যেই কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হবে।এবারের কমিটি গতানুগতিক ধারার বাহিরে  সবার কাছে গ্রহনযোগ্য একটি কমিটি দেয়া হবে। 


খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ কমিটি গঠন করা হয় ২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর। শাহরিয়ার আলম সামাদকে সভাপতি ও এম. রায়হান চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে সে সময় গঠন করা হয় ১০ সদস্যের আংশিক কমিটি। পরের বছর ২০১৫ সালের ৪ ডিসেম্বর আরো ১৩১ সদস্য যোগ করে ১৪১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন পায়। চার মাসের মাথায় ২০১৬ সালের ২৫ মার্চ সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত করে কেন্দ্র। ৯ মাস পর ১১ ডিসেম্বর কমিটির ওপর থেকে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করা হয়। 

২০১৭ সালে  ১৮ অক্টোবর কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এবং সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। এরপর বারবার সিভি নিলেও কমিটি দিতে ব্যর্থ হয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। 

ঠিক তেমনি- কমিটি ছাড়াই প্রায় ৪ বছর ধরে চলছে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ। ২০১৫ সালের ২০ জুলাই আব্দুল বাছিত রুম্মানকে সভাপতি ও আব্দুল আলীম তুষারকে সাধারণ সম্পাদক করে মহানগর ছাত্রলীগের ৪ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। প্রায় সাড়ে ৩ বছরেও কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে না পারা এবং নানা অভিযোগে গত বছরের ২১ অক্টোবর বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয় এ কমিটি।


সিলেট প্রতিদিন /এসএল