গোলাপগঞ্জে বাবা-মা ও মেয়ের অপকর্মে অতিষ্ঠ একটি গ্রাম

গোলাপগঞ্জে বাবা-মা ও মেয়ের অপকর্মে অতিষ্ঠ একটি গ্রাম

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি :: গোলাপগঞ্জের লক্ষনাবন্দে নানা অপকর্মে একটি গ্রামকে অতিষ্ঠ করে তুলেছেন একই পরিবারের তিনজন ব্যক্তি। সম্পর্কে তারা বাবা-মা ও মেয়ে। তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে মাদক, পতিতার মাধ্যমে দেহ ব্যবসাসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ। উপজেলার লক্ষনাবন্দ ইউপির নওয়াই দক্ষিণভাগ গ্রামে তারা দেদারছে চালিয়ে যাচ্ছে এমন অপকর্ম।

তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুললে নানাভাবে হয়রানি করে আসছে সাধারণ মানুষদের। তাদের এমন অপকর্মের অভিযোগ এনে গত মাসের ৯তারিখ সিলেটের জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন লক্ষনাবন্দ ইউপির ৭ ও ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।

অভিযুক্তরা হলেন দক্ষিণভাগ গ্রামের বাসিন্দা আসা মিয়া (৪৫), স্ত্রী (৪০) ও মেয়ে (২৩)। এছাড়াও সিলেটের পুলিশ সুপার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরারর অনুলিপি প্রদান করেন তারা।

অভিযোগে লক্ষনাবন্দ ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রাজু আহমদ, ইউপি সদস্য আশুক মিয়া, জাহেদ আহমদ, আপ্তাব আলী, মহিলা সদস্য পারভীন বেগম, সন্ধ্যা রানী চন্দ ও সামী রানী চন্দ সহ প্রায় শতাধিক স্থানীয় বাসিন্দা স্বাক্ষর করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, দীর্ঘদিন থেকে আসা মিয়া, স্ত্রী ও মেয়ে এলাকায় নেশা জাতীয় গাঁজা, মাদক, পতিতার মাধ্যমে দেহ ব্যবসাসহ নানা অপকর্ম করে আসছে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতেও থেমে নেই তারা। দিন-দুপুরে ও রাতের আঁধারে তাদের বাড়িতে বাইরের লোকজন অসৎ উদ্দ্যেশ্যে যাওয়া আসা করে। প্রতিবেশী ও স্থানীয় পঞ্চায়েতের লোকজন এতে বাঁধা নিষেধ করলে তারা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও অসামাজিক আচরণ করে। তাদের অপকর্মে এলাকার যুব সমাজ ও স্কুল পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীরা হুমকির মুখে রয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। তাদের এমন কর্মকান্ডের প্রতিকার ও তাদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান স্থানীয়রা।

এব্যাপারে লক্ষনাবন্দ ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রাজু আহমদ বলেন, “এরা উশৃঙ্খল প্রকৃতির লোক। তাদের বিরুদ্ধে নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। একজন মহিলা ইউপি সদস্যকেও হেনস্তার অভিযোগ রয়েছে। আমরা এর প্রতিকার চেয়ে উর্দ্ধতন মহলে অভিযোগ দাখিল করেছি”।

এসএএম