দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় স্থায়ী শান্তির পথ প্রশস্ত হবে: বঙ্গবন্ধু

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় স্থায়ী শান্তির পথ প্রশস্ত হবে: বঙ্গবন্ধু


প্রতিদিন ডেস্ক :  প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভিয়েতনাম শান্তি চুক্তিকে অভিনন্দিত করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ আন্তরিকভাবে আশা করে যে এই চুক্তি ভিয়েতনাম ও সমগ্র দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার পথ প্রশস্ত করবে।

দীর্ঘ কয়েক বছরের যুদ্ধের অবসান এবং ভিয়েতনাম ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সম্মানজনক শান্তি প্রতিষ্ঠায় প্যারিসে রাত ১২টায় একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নিক্সন ২৩ জানুয়ারি ওয়াশিংটনে টেলিভিশন বক্তৃতায় যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দেন।

বাসস জানায়, শান্তি চুক্তি সম্পর্কে বঙ্গবন্ধুর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের পক্ষ থেকে আমি সর্বান্তকরণে ভিয়েতনাম শান্তি চুক্তিকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, আমি গভীর শ্রদ্ধা সহকারে এই সংবাদ গ্রহণ করেছি। বঙ্গবন্ধু ইতোমধ্যে ওয়াশিংটনে বার্তা পাঠিয়ে মর্মান্তিক যুদ্ধ অবসানের সাফল্যের জন্য ভিয়েতনাম গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র (উত্তর ভিয়েতনাম) ও মার্কিন সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

যুদ্ধাপরাধের বিচার সুপ্রিম কোর্টের মর্যাদাসম্পন্ন আদালতে হবে

এপ্রিল অথবা মে মাসের প্রথমদিকে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের মর্যাদাসম্পন্ন একটি আদালত গঠন করা হবে। অমৃতবাজার পত্রিকার লন্ডনস্থ সংবাদদাতা বাংলাদেশের আইনমন্ত্রী ড. কামাল হোসেনের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন। ওই আদালতে কমপক্ষে ১২ পাকিস্তানির বিচার করা হবে। যার প্রধান আসামি হবেন জেনারেল নিয়াজী। আসামি  হিসেবে থাকবেন তার ঘনিষ্ঠ সহচররাও। এসব পাকিস্তানি সৈন্যরা কেবল হত্যা করেনি ধর্ষণও করেছে। কামাল হোসেন বলেন, পাকিস্তানিরা আমাদের দেশে যে ধরনের অপরাধ করেছে সেটা বিশ্ববাসীকে জানানো আমাদের এই বিচার অনুষ্ঠানের প্রধান উদ্দেশ্য।

তিনি বলেন, এ অপরাধ নুরেমবার্গ যুদ্ধাপরাধের মতোই ভয়াবহ। এ বিচারের মাধ্যমে আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ বংশধরদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, এ ধরনের অপরাধ বিনাবিচারে পার পায় না। নুরেমবার্গ বিচারে আন্তর্জাতিক নীতিবোধ যেভাবে জড়িত ছিল এটাতেও সেভাবে জড়িত। সারাবিশ্ব যাতে জানতে পারে সেজন্য প্রকাশ্য আদালতে বিচার অনুষ্ঠিত হবে।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে সমর্থনের সিদ্ধান্ত দেয় যুবলীগ

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সম্মেলনে দেশের আসন্ন সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের প্রতীক পূর্ণ সমর্থন দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সম্মেলনে গৃহীত প্রস্তাবে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের সমর্থন তাদের জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

দু'দিনব্যাপী কর্মী সম্মেলনের প্রথম দিনে প্রধান অতিথির ভাষণে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান বলেন, আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩শ আসনে জয়লাভ করবে এবং বাংলার মাটিতে মুজিববাদ প্রতিষ্ঠা করবে। আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক শেখ ফজলুল হক মনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সম্মেলনে বক্তৃতা দেন কেন্দ্রীয় নেতা জিল্লুর রহমান। তিনি বলেন, বিপ্লবের পর আরেকটি বিপ্লব দরকার বলে ধোঁয়া উঠিয়ে এই মুহূর্তে দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে এক শ্রেণির লোক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হচ্ছিল সেই সময় যুবলীগের মাধ্যমে এ দেশের যুবসমাজ একত্রিত হয়েছে।

খাদ্য মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান শুরুর ঘোষণা

সরকার খাদ্য মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী মজুমদার ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিরুদ্ধে শিগগিরই ব্যাপক অভিযান শুরু করবে। এই দিন ঢাকায় এনার সঙ্গে এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে খাদ্যমন্ত্রী ফণীভূষণ মজুমদার এ তথ্য প্রকাশ করেন। তিনি জানান, বর্তমান খাদ্য সমস্যা মোকাবিলায় সরকার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে বা দীর্ঘমেয়াদি ঋণের মাধ্যমে সংগ্রহ করার জন্য বন্ধুভাবাপন্ন দেশগুলোতে আলাপ-আলোচনা চালাচ্ছে। দেশের খাদ্য পরিস্থিতি সম্পর্কে সাম্প্রতিক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে উল্লেখ করে মজুমদার জানান, চট্টগ্রাম বন্দরে দ্রুত খাদ্যশস্য খালাস ও বিভিন্ন জেলায় স্বাভাবিক খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করবার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।

সিলেট প্রতিদিন /টিআই