পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় বদলে যাচ্ছে সিলেট নগরী

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় বদলে যাচ্ছে সিলেট নগরী

প্রতিদিন প্রতিবেদক ::

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ড. একে আব্দুল মোমেনের প্রচেষ্টায় ২য় লন্ডন খ্যাত সিলেট হচ্ছে উন্নয়নমূলক কাজ। দেশে তারবিহীন প্রথম নগরী হিসেবে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখিয়েছে। বর্তমানে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে রাস্তার ডিভাইডারে লন্ডনের রাস্তার মতো হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন কাজ। বাড়ছে নগরীর সৌন্দর্য। 

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় এসব উন্নয়নমূলক কাজের তদারকি করছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। 

সিলেট নগরের সবচেয়ে ব্যস্ততম এলাকা বন্দরবাজার ও জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা। প্রতিদিন এই সড়কে দীর্ঘ যানজট লেগে থাকতো। সেই সাথে হকারসহ ক্ষুদে ব্যবসায়ীদের দখলে ছিল ফুটপাত ও সড়ক। 

তবে এবার বদলে যাচ্ছে নগরের ব্যস্ততম এই সড়কের চিত্র। সম্প্রসারিত করে এই সড়ককে দৃষ্টিনন্দন রূপ দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। 
 
এতদিন বন্দরবাজার থেকে চৌহাট্টা পর্যন্ত সড়কটি ওয়ানওয়ে থাকলেও সম্প্রতি সড়কের মাঝে ডিভাইডার স্থাপন করা হয়েছে। বর্তমানে এই সড়ক বিভাজকের সৌন্দর্যবর্ধণের কাজ চলছে। ইতোমধ্যে তার কিছুটা দৃশ্যমান হতেও শুরু করেছে।

সিলেট নগরীর সড়ক উন্নয়ন ও সৌন্দর্য আধুনিকায়নে বিশেষ পরিকল্পনা হাতে নিয়ে নগরীর চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার সড়কটিতে কারুকাজ করা ‘টেস্টিং গ্রিল’ বাসানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আগামী ১ জানুয়ারি থেকে নগরের গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কে রিকশা, ঠেলাগাড়ি ও ভ্যান চলাচল বন্ধ ও বিদ্যুতের খুঁটিতে পোস্টার লাগানো নিষেধ করা হয়েছে।

নগরবাসীকে এমন সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে মাইকিং করতে দেখা যায়।

জানা যায়, গত বছরের নভেম্বরে চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার সড়ক সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সড়কের দুই পাশের স্থাপনা ভেঙ্গে সম্প্রসারিত হয় সড়ক। সংস্কার করা হয় সড়কের দুই পাশের ড্রেন ও ফুটপাত। সম্প্রসারণের পর সড়কের মাঝখানে ডিভাইডার বসিয়ে দুই পাশ দিয়ে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়।

এই সড়কে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, সরকারি মহিলা কলেজ, অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।  এছাড়া নগরের প্রধান প্রধান মার্কেট ও বিপণী বিতানগুলোও জিন্দাবাজারসহ আশপাশের এলাকায় অবস্থিত।

এ সড়কের বিদ্যুতের খুঁটিতে পোস্টার লাগানো সম্পূর্ণ নিষেধ করা হয়েছে। একই দিন থেকে এ সড়ক দিয়ে কোন অযান্ত্রিক যানবাহন ও রিকশা চলাচল করতে পারবে না। এমন ঘোষণা দিয়ে নগরীতে মাইকিং করতে দেখা গেছে। এসব নির্দেশনা না মানলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারিও দেয়া হয়েছে মাইকিংয়ের সময়।    

এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানান, ‘এটি একটি ব্যতিক্রমী সড়ক হতে যাচ্ছে। এ লক্ষেই রিকশা চলাচল বন্ধ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেই সাথে পোস্টার না লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তিনি আরও জানান , এ সড়ক দেখলে যেন বুঝা যায় ‘দ্বিতীয় লন্ডন সিলেট’।    


সিলেটপ্রতিদিন/এসএ/এমএ