'মায়ের লাইগা' ইফতার নিতে আইছি

'মায়ের লাইগা' ইফতার নিতে আইছি

প্রতিদিন প্রতিবেদক :: বিকেল সাড়ে ৪টার দিকেই শুরু হয় ব্যতিক্রমী এক ইফতার বিতরণের তোড়জোড়। প্রথমেই দৃষ্টিনন্দন ব্যাগের ভেতর প্রয়োজনীয় ইফতার সামগ্রী রাখার কাজ। সেটি শেষে এক একটি ব্যাগ ও এক বোতল পানি রাখা কয়েক ফুট দূরত্বে, এরপর নজরদারি, কেউ যাতে প্রয়োজনের অতিরিক্ত ব্যাগ না নেন। এভাবেই ইফতার বিতরণ হলো সিলেট জেলা যুবলীগের।
 
সোমবার বিকেল থেকেই এ উপলক্ষে নগরীর সেলফি ব্রিজ হিসাবে খ্যাত কাজিরবাজার ব্রিজে নেতৃবৃন্দের আনাগোনা শুরু হয়। চলে ইফতারের সময় পর্যন্ত। করোনাকালে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইফতার বিতরণের এমন আয়োজনে যেমন খুশি সুবিধাভোগী নাগরিক বৃন্দ, তেমনি খুশি আয়োজকরাও।
 
রিকশাচালক আনিসুর রহমান (৪৪) এ বিষয়টিতে খুব মুগ্ধ। তিনি ইফতারের প্যাকেট নিয়ে ফেরার পথে জানান, ইকটা খুউব বালা। জামেলা নাই।
 
সে রোজা রাখেনি। বয়সটাও হয়নি। তবে তার মা’তো রোজা রেখেছেন। তাই তার জন্যই সে এসেছে ইফতার নিতে। নাম পুষ্পা। আনুমানিক ৯/১০ বছরের মেয়েটি ধরণী উজ্জল করা হাসি ছড়িয়ে বললো, খুশিতো খুব। ইফতার মার লাইগা নিতে আইছি। জামেলা নাই। সুন্দর কইরা দিতাছে হেরা। ভালো লাগতাছে খুউব।
 
এমন ভালো লাগায় ভরা জেলা যুবলীগের ইফতার গ্রহণ করেছেন প্রায় ৩শ’ মানুষ। তাদের প্রায় সবাই নিম্নবিত্তের। ইফতার বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা যুবলীগ সভাপতি শামিম আহমদ ভিপি, সাধারণ সম্পাদক শামিম আহমদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
 
চমৎকার আয়োজন ও তা চমৎকারভাবে সম্পন্ন করতে পারায় তারাও তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলতেই পারেন।
 
সিলেট প্রতিদিন/ইকে