সিলেটসহ সারাদেশে শিগগিরই সাংগঠনিক টিম,মেয়াদোত্তীর্ণ সকল ইউনিটের সম্মেলন স্থগিত

সিলেটসহ সারাদেশে শিগগিরই সাংগঠনিক টিম,মেয়াদোত্তীর্ণ সকল ইউনিটের সম্মেলন স্থগিত

প্রতিদিন প্রতিবেদক :: সংগঠনকে গতিশীল করার লক্ষে শিগগিরই সিলেট সহ সারাদেশে সাংগঠনিক টিম গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। পাশাপাশি মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা, মহানগর ও উপজেলার সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। শিগগিরই বিভাগীয় টিম গঠন করে দায়িত্ব বণ্টন করা হবে। বিভাগীয় টিমের নেতারা সাংগঠনিক প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোর সাংগঠনিক কর্মসূচি গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত হয়।

শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) দুপুরে বনানীতে যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের বাসভবনে সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদকদের এক বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়।

যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ পরশের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট মামুনুর রশিদ, মঞ্জুর আলম শাহীন, আবু আহমেদ নাসিম পাভেল, ডা. খালেদ শওকত আলী, মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, হাবিবুর রহমান পবন, সাজ্জাদ হায়দার চৌধুরী লিটন, তাজউদ্দিন আহমেদ, জুয়েল আরেং, আনোয়ার হোসেন, শাহাদাত হোসেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা, সুব্রত পাল, মো. বদিউল আলম, ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম ও মো. রফিকুল আলম জোয়ার্দার, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মো. মাজহারুল ইসলাম, ডা. হেলাল উদ্দিন, মো. সাইফুর রহমান সোহাগ, মো. জহির উদ্দিন খসরু, মো. সোহেল পারভেজ, আবু মুনির মো. শহিদুল হক রাসেল, মশিউর রহমান চপলসহ অন্যান্যরা।

এর আগে ১৪ নভেম্বর যুবলীগের ২০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যুবলীগের কমিটিতে ২৭ জন প্রেসিডিয়াম সদস্যের মধ্যে ২২ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। পাঁচটি পদ ফাঁকা রয়েছে। গত বছর অনুষ্ঠিত সপ্তম কংগ্রেসে শেখ ফজলে শামস পরশকে যুবলীগের চেয়ারম্যান ও মাইনুল ইসলাম খান নিখিলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মণির নেতৃত্বে ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক যুব কনভেনশনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা লাভ করে যুবলীগ। পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সংগঠনটি।

শনিবারে বৈঠকে আগামী দিনে যুবলীগকে যুব সমাজের ভ্যানগার্ড হিসাবে আদর্শের আস্থা বিশ্বাসের ঠিকানা নির্ভরতা হিসাবে এগিয়ে নিতে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়। যুবলীগ চেয়ারম্যানসহ কমিটির নেতারা বিভিন্ন পরামর্শ ও নির্দেশনা দেন। সে আলোচনার পরিপেক্ষিতে আগামী দিনে সারাদেশে মেয়াদোত্তীণ জেলা, মহানগর উপজেলা কমিটিসহ তৃণমূলে যুবলীগকে কীভাবে ঢেলে সাজানো যাবে, সে বিষয়ে আলোচনা হয় এবং কিছু সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সংগঠনকে গতিশীল করার লক্ষ্যে বিগত দিনে সংগঠনের যে ইমেজ তথা ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে, কতিপয় নেতার কারণে ক্যাসিনোসহ বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে সংগঠনের ইমেজ সংকটে পড়েছে তা আগামী দিনে কীভাবে পুনরুদ্ধার বা কাটিয়ে ওঠা যাবে, সে বিষয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ করে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে আলোচনা হয়।

এ ছাড়া জেলা, মহানগর ও উপজেলা সকল শাখার সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংগঠনিক সম্পাদকের নেতৃত্বে বিভাগীয় সাংগঠনিক টিম গঠন হওয়ার পর জেলা-উপজেলা ও মহানগর শাখার সম্মেলন করার দিকে পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত হয়। 

চলতি মাসেই এসব বিভাগীয় টিম গঠন করে দায়িত্ব বণ্টন করা হবে। বিভাগীয় টিমের নেতারা সাংগঠনিক প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর তা সংগঠনের ফোরামে আলোচনা করে পরবর্তীতে জেলা উপজেলা মহানগরে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোর সাংগঠনিক কর্মসূচি গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত হয়।

সিলেট প্রতিদিন/এসএল