সিলেটে শেষ মুহুর্তে ভিড় মশলা ছুরি-চাকু ও চাপাতির দোকানে

সিলেটে শেষ মুহুর্তে ভিড় মশলা ছুরি-চাকু ও চাপাতির দোকানে

মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম:: 
রাত পোহালেই ঈদুল আজহা বা কোরবানীর ঈদ। আর মসলা হচ্ছে এ ঈদের অন্যতম অনুষঙ্গ। তাই কোরবানির পশুর মাংস রান্না করতে যে জিনিসটি না হলেই নয় তা হলো মশলা। সিলেটে শেষ মুহুর্তে ঈদের কেনাকাটায় সিলেটে এখন ভিড় বেড়েছে মসলার বাজারে। তাছাড়া অনেকেই ভিড় করছেন ছুরি-চাকু ও চাপাতির দোকানগুলোতেও।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকাল থেকেই সিলেটের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে বাজারগুলোতে বেঁচাকেনা বেড়েছে মশলার। বিশেষ করে দুপুর গড়াতেই মানুষের ভিড় বেড়েছে মসলার বাজারে।

ক্রেতাদের বাড়তি চাহিদার কথা মাথায় রেখে এবার বাজারের প্রতিটি দোকানেই পর্যাপ্ত মসলা মজুদ রয়েছে। দামও নাগালের মধ্যে। তবে অনেক ক্রেতারা বলছেন, এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিটি মসলারই দাম বেড়েছে। 

মঙ্গলবার সিলেটের বন্দরবাজারের বিভিন্ন মশলার দোকান ঘুরে দেখা গেছে, মান ভেদে কেজিপ্রতি বড় এলাচ ৭০০ থেকে ৯৫০ ও ছোট এলাচ ১ হাজার ১০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা, কালো গোলমরিচ ৪৮০ থেকে ৫০০ এবং সাদা গোলমরিচ ৭০০ টাকা, ভারতীয় জিরা ৩২০ থেকে ৩৬০ ও সিরিয়ার জিরা ৩৮০ থেকে ৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া তেজপাতা ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজি, মেথি ৬৫ থেকে ৭০ টাকা, দারুচিনি ২৩০ থেকে ২৬০, লবঙ্গ ৭৫০ থেকে ৯৪০ কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

প্রতিকেজি কিসমিস ৩৫০ থেকে ৪৪০ টাকা, আলু বোখারা ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা, কাঠবাদাম ৭০০ থেকে ৭৬০ টাকা, পোস্তদানা ১ হাজার ৫০০ থেকে ১ হাজার ৮৫০ টাকা, জায়ফল ৪৪০, জয়ত্রী ১ হাজার ৫০০ থেকে ১ হাজার ৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাংসের জন্য স্পেশাল স্টার মশলা ৭০০ টাকায় এবং কাবাব চিনি ২ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে।  

তবে কাঁচাবাজারে দাম বাড়েনি আদা, রসুন, পেঁয়াজ ও মরিচের। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকায়। দেশি রসুন ৬০ থেকে ৭০ টাকায় এবং আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ৯০-১০০ টাকা কেজি দরে। দেশি আদা ৯০ থেকে ১০০ টাকা এবং আমদানি করা আদা বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৭০ থেকে ৮০ টাকায়।

এদিকে, কোরবানীর পশু জবাই করা, মাংস কাটা ও চামড়া ছাড়ানোর জন্য প্রয়োজন হয় ছুড়ি-চাকু, চাপাতি, বঁটি, দাসহ নানা ধরনের উপকরণের। তাই ঈদের আগ মুহুর্তে অনেককেই দেখা গেছে ছুড়ি-চাকু, চাপাতির দোকানগুলোতে ভিড় করতে।

দোকানগুলোতে ছুরি-চাকু আকারভেদে ৫০ থেকে ২৫০ টাকায় বিক্রী হচ্ছে। এছাড়া বিভিন্ন প্রকার চাপাতি বিক্রী হচ্ছে ৭০০ থেকে ১২০০ টাকা পর্যন্ত।  

সিলেট প্রতিদিন/এমএনআই-০৩