বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৫ অপরাহ্ন


‘হেলমেট আছে তো জ্বালানি আছে’ শুধু বাণীতেই সীমাবদ্ধ

‘হেলমেট আছে তো জ্বালানি আছে’ শুধু বাণীতেই সীমাবদ্ধ


প্রতিদিন প্রতিবেদক:: গত ১ অক্টোবর থেকে সিলেট নগরীতে ‘হেলমেট আছে তো জ্বালানি আছে’ কার্যক্রম শুরু করে সিলেট মহানগর পুলিশের ট্রাফিক শাখা। মোটর সাইকেল চালকদের হেলমেট ব্যবহার নিশ্চিত করতে এ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। কিন্তু এ উদ্যোগ গ্রহণের পর থেকেই সমালোচিত হয়ে আসছে। শুরুর দিকে ৩ থেকে ৪ দিন কিন্তু উদ্বোধনের পর ২ থেকে ৩ দিন পর্যন্ত পেট্রোল পাম্পগুলো জ্বালানি বিক্রিতে কড়াকড়ি আরোপ ছিলো। আরোহীরাও জ্বালানি সংগ্রহের জন্য হলেও হেলমেট প্রদর্শন করতেন। এমনকি পুলিশও নগরীর পেট্রোল পাম্পগুলোকে চালকের হেলমেট না থাকলে মোটর সাইকেলে পেট্রোল বিক্রি বন্ধের নির্দেশনা দেন।
কিন্তু সপ্তাহ না ঘুরতেই ফের হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল আরোহীদের কাছে জ্বালানি (পেট্টোল) বিক্রি শুরু করেছে পেট্টোল পাম্পগুলো। পুলিশের নির্দেশনা ভেঙে নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসেন পাম্প কর্মচারীরা। এখন হেলমেট আছে তো জ্বালানি আছে’ শুধু বাণীতেই সীমাবদ্ধ।
বৃহস্পতিবার সিলেট নগরের মদিনা মার্কেট এলাকার নর্থ ইস্ট সিএনজি রি-ফুয়েল স্টেশনে কয়েকজন তরুণ আসেন পেট্রোল নিতে। কারো মাথায় হেলমেট নেই। হেলমেট ছাড়া পেট্রোল দেওয়া হবে না এই ফেস্টুনটি দেখিয়ে পাম্পের একজন কর্মী তাদের হেলমেট ছাড়া পেট্রোল বিক্রি হবে না বলে জানান। এই কথা শুনেই সেই কর্মীর উপর চড়াও হন তিন তরুণ। পরে কোনও উপায় না দেখে তাদের পেট্রোল দিয়ে বিদায় দেন পাম্পের কর্মীরা।

একইদিনে নগরীর সোবহানীঘাট পয়েন্টে মোটর সাইকেল নিয়ে পেট্রোল নিতে আসেন এক তরুণ। তার মাথায়ও হেলমেট নেই। যথারীতি পাম্পের কর্মী হেলমেট ছাড়া পেট্রোল বিক্রিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এসময় এই পাম্পে হেলমেটসহ আরেকবার মোটর সাইকেল চালক আসেন পেট্রোল নিতে। তার কাছ থেক কিছু সময়ের জন্য হেলমেটটি ধার নেন আগের চালক। পেট্রোল কিনে নেয়ার পর ফিরিয়ে দেন হেলমেট।

এরকম চিত্র দেখা গেছে নগরীর আরও কয়েকটি পেট্রোল পাম্প ঘুরে। ফলে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধে মোটরসাইকেল চালকদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে পুলিশের এই উদ্যোগের পুরোপুরি সুফল মিলছে না। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চালকরা নিজে থেকে সচেতন না হলে এমন উদ্যোগ পুরোপুরি কার্যকর সম্ভব হবে না।

সরজমিনে দেখা যায়, সিলেট নগরের প্রায় সবকটি পেট্রোল পাম্পেই হেলমেট ছাড়া পেট্রোল দেওয়া হয়। কিছু কিছু পাম্পে তেল দেওয়া হলেও মোটরসাইকেল আরোহীদের হেলমেট পড়ে তেল নেওয়ার আহবান জানান পাম্পের কর্মীরা। কিছু পাম্পে শুধু নামে মাত্র ‘নো হেলমেট নো পেট্রোল’ ফেস্টুন ঝুলানো রয়েছে। গ্রাহকরা হেলমেট ছাড়াই তেল নিচ্ছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন- ‘হেলমেট ছাড়া তেল দেওয়া হবে না’ এটি বর্তমান সময়ের জন্য উপযোগী সিদ্ধান্ত। কিন্তু এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। হেলমেট ছাড়া তেল দিলে পেট্রোল পাম্প ও মোটরসাইকেল আরোহী দুপক্ষকেই জরিমানা করার ব্যবস্থা রাখতে হবে। কারণ এখন ভয় ছাড়া কাজ হয় না। আর জেল জরিমানা করলে মানুষজন সচেতনতার জন্য না হলেও ভয়ে হেলমেট পড়বে।

হেলমেট ছাড়া পেট্রোল দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন সিলেট বিভাগীয় পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতির সভাপতি মো. মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, মোটরসাইকেল চালকদের হেলমেট ব্যবহারে উদ্যোগী করতে যে কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছিল সেটা কাজ করছে না। পাম্পগুলোতে হেলমেট ছাড়াও তেল দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা ক্রেতা তাদেরকেও বুঝতে হবে। পেট্রোল দিব না বললেই মোটরসাইকেল চালকরা অশোভন আচরণ করেন। বিভিন্ন পেট্রোল পাম্পে বিশৃঙ্খলার ভিডিও ফুটেজও আছে।

সিলেট বিভাগীয় পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতির সভাপতি মো. মোস্তফা কামাল আরও বলেন, এ ব্যাপারে পুলিশকেই তৎপর হতে হবে। কারণ হেলমেট ব্যবহার না করলে দন্ড দেওয়ার আইন আছে। কয়েকটি পেট্রোল পাম্পের আশপাশে পুলিশ অভিযান দিয়ে কয়েকজন চালককে জরিমানা করলেই বাকীরা শিক্ষা গ্রহণ করবেন।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (ট্রাফিক) নিকোলিন চাকমা বলেন, নিজের সচেতনতার স্বার্থে হেলমেট পড়ে গাড়ী চালাতে হবে। এ ব্যাপারে পেট্রোল পাম্প মালিকদের আরো সচেতন হতে হবে।

সিলেটপ্রতিদিন/এসএ





পুরানো সংবাদ

Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  


© All rights reserved © 2017 sylhetprotidin.com