শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৬:১১ অপরাহ্ন


ধারণা সত্য হলো সংস্কৃতি কর্মীদের, বিতর্কিত রবীন্দ্র স্মরনোৎসব: পর্ব-৫

ধারণা সত্য হলো সংস্কৃতি কর্মীদের, বিতর্কিত রবীন্দ্র স্মরনোৎসব: পর্ব-৫


প্রতিদিন প্রতিবেদক : সিলেটের রবীন্দ্র চেতনার ধারক সংস্কৃতিকর্মীদের দাবি ভিত্তিহীন নয়, এমন প্রমান বুধবার প্রত্যক্ষ করলেন নগরবাসী। নগরপিতার আসনে অধিষ্ঠিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সাংবাদিকদের উপর ভয়ানক রেগে যাওয়ার দৃশ্যটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। এদিকে, সংস্কৃতি কর্মীদের দাবি ছিল-মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী একজন হত্যা মামলার আসামী। রবীন্দ্রনাথ ও বাঙ্গালী সংস্কৃতিবিরোধী এই ব্যক্তিকে রবীন্দ্র স্মরনোৎসব উদযাপন কমিটি থেকে বাদ দিতে হবে। কারণ, উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুতরাং যে পরিষদের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী সিলেট আসছেন, সেই পরিষদে আরিফুল হকের মতো একজন উগ্র ও মৌলবাদী রাজনীতির পৃষ্ঠপোষক যুক্ত থাকলে সেই অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তাঁরা। এরই দাবিতে সংস্কৃতিকর্মীদের একের পর এক কর্মসূচী চলমান রয়েছে। সিলেটে স্মরণকালের এই মহাযজ্ঞ সার্বজনীন এবং আশংকামুক্ত রাখতে গঠিত উদযাপন পরিষদ থেকে বিতর্কিত সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর অপসারণ দাবিতে বিক্ষুব্ধ সংস্কৃতিকর্মীদের যৌক্তিক দাবির প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করেন সাংবাদিক নাজমুল কবির পাভেল।
গেলো ২১ অক্টোবর উদযাপন পরিষদের আহবায়ক ও সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের বাসভবনে রবীন্দ্র স্মরনোৎসবের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে সাংবাদিকদের সাথে এক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় পরিষদের যুগ্ম সদস্য সচিব মেয়রের ঘণিষ্টজন এবং রাজনৈতিক অনুসারী আমিনুল ইসলাম লিটন বক্তব্যের এক পর্যায়ে বলেন, উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে আসছেন ‘প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ’। লিটনের পুরো বক্তব্য ধারণ করা হয় সিল নিউজ বিডিতে। পরে ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেলে আমিনুল ইসলাম লিটন পরিষদ থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। নিজ দলীয় অনুসারী এবং ঘণিষ্টজনের এই পদত্যাগের পিছনে সিল নিউজ ভিডির ধারণকৃত রেকর্ডটিকে দায়ি করে মেয়র আরিফুল হক ক্ষুব্ধ হন সিলনিউজ বিডির সম্পাদক পাভেলের উপর। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার তিনি নগরীর ফুটপাতে অভিযান চালাতে গিয়ে সাংবাদিক পাভেলকে দেখেই তেড়ে আসেন।
এদিকে, বুধবার মেয়রের নিয়মিত ফুটপাত অভিযানের দৃশ্য ধারণ করতে গিয়ে তিনি ক্ষেপে উঠেন সিনিয়র ফটো সাংবাদিক নাজমুল কবির পাভেলের উপর। মেয়রের ক্ষেপে যাওয়ার পর আরো একধাপ এগিয়ে আসেন সিসিকের জনসংযোগ কর্মকর্তা শাহাব উদ্দিন সিহাব। তিনি ওই সাংবাদিককে কুত্তার বাচ্চা গালি দিয়ে ‘ওকে ধর, ওকে ধর’ বলে সিকিউরিটি গার্ড দিয়ে অসম্মানজনকভাবে তাড়িয়ে দেন।
এই ঘটনা নগরজোড়ে এখন তোলপাড়। ভিডিওতে দেখা যায়, মেয়র আরিফ পাভেলকে দেখেই উত্তেজিত হয়ে উঠেন এবং বলতে থাকেন, ‘ তুমি কিতা ইয়ার্কী মাররায় নি, ইনর মাঝে ?’ মেয়রের পথ ধরেই আরো একধাপ এগিয়ে জনসংযোগ কর্মকর্তা শিহাব অশ্লিল বাক্য বর্ষণ করে সিকিউরিটি গার্ড দিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে সাংবাদিক পাভেলকে পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধার সৃষ্টি করেন।
এদিকে, মেয়রের এই ঘটনার পর সিলেটের সংবাদ কর্মীদের পাশাপাশি সুস্থ্য সংস্কৃতি চর্চার অনুসারী সংস্কৃতিকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের জন্ম নিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার শহিদমিনারে মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে ফটো সাংবাদিক পেশাজীবী সমিতি। এদিকে, মেয়র এবং সিসিক বাহিনীর এমন গু-ামীর দৃশ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে সংস্কৃতি ও সংবাদকর্মীদের মধ্যে। তাদের দাবি একজন চিহ্নিত গু-া রবীন্দ্র স্মরনোৎসবে যুক্ত থাকলে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিঘিœত হতে পারে। তাই বিজাতী সংস্কৃতির অনুসারী মৌলবাদীদের মদদদাতা আরিফুল হককে রবীন্দ্র স্মরনোৎসবের সদস্য সচিবের পদ থেকে অপসারনের জন্য জোর দাবি জানান।





পুরানো সংবাদ

Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  


© All rights reserved © 2017 sylhetprotidin.com