বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন


পুলিশি অভিযানে আতংকিত সুনামগঞ্জ শহরবাসী

পুলিশি অভিযানে আতংকিত সুনামগঞ্জ শহরবাসী

  • 48
    Shares

মোমেন মুন্না.সুনামগঞ্জ:: হঠাৎ পুলিশি অভিযানে আতংকিত হয়ে উঠছে সুনামগঞ্জ শহরবাসী। বাদ পড়েনি ব্যবসায়ী, চাকুরীজীবি, পেশাজীবি, সাধারন মানুষ ও পথচারীরা। দুরদুরান্ত থেকে আগত যাত্রীরা শহরে রিক্সা কিংবা সিএনজি না পেয়ে মহাবিপদে রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় শহরে পুলিশি অভিযানে কিছুলোককে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ায় আতংকিত হয়ে উঠছে মানুষ। কখন কাকে ধরে নিয়ে যায় এ নিয়ে সবাই আতংকিত হয়ে পড়ছে। সুত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার শহরের হাছন নগর এলাকায় একজন যুবককে কুপিয়ে জখম করার জের ধরেই হঠাৎ পুলিশ গরম হয়ে উঠে। এ ছাড়াও নবাগত পুলিশ মো: মিজানুর রহমান বিপিএম যোগদানের পর  স্থানীয় একটি গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি ঘোষনা দিয়েছিলেন যে শহরের অলিতে গলিতে চায়ের দোকান রাত ৯টার পর বন্ধ রাখতে হবে এবং বাসষ্টেশন, জনসমাগম এলাকায় এর আওতামুক্ত রাখা হবে। কিন্তু হঠাৎ গত বৃহস্পতিবার সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: জয়নাল আবেদীনের নেতৃত্বে সদর থানা, জেলা গোয়েন্দা ও বিশেষ শাখার পুলিশ সদস্যদের নিয়ে সাড়াশী অভিযান পরিচালনা করে শহরে আতংক সৃষ্টি হয়। তারই জের ধরে গত শুক্রবারও কয়েকজনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ। পৌর শহরের হাছন নগর এলাকার বাসিন্দা কামরুল ইসলাম জানান, দেশে কারফিউ চলারমত পরিবেশ দেখা দিয়েছে। ওয়াল ইলিভেনের চেয়ে খারাপ অবস্থায় আছি। ঘর থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছি। স্বাভাবিক চলার নিশ্চয়তা পাচ্ছি না। পুলিশের ভয়ে স্কুল কলেজে পড়–য়া ছেলে-মেয়েরা প্রাইভেট পড়তে যেতে পারছে না।  সুরমা মার্কেটের  ব্যবসায়ী নিজাম জানান, দেশে কি জরুরী অবস্থা চলছে? পুলিশ কেন উত্তেজিত হয়ে উঠছে? যাকে রাস্তায় পাচ্ছে তাকেই ধরে নিয়ে যাচ্ছে? দেশে কি পুলিশের ক্ষমতাই বেশী? পুলিশ সাধারন মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দেয়া কথা থাকলেও করছেন উল্টো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ এ অবস্থা থেকে আমাদেরকে মুক্তিদিন। স্বাভাবিকভাবে চলাফেরার সুযোগ দিন। আরপিননগর নিবাসী মিজান জানান, পুলিশ সাধারন মানুষকে ধরে নিয়ে যায় কিন্তু এলাকার চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করে না। ইয়াবা ও তীর শিলং ব্যবসায়ীদের তালিকা পুলিশ,ডিবি ও র‌্যাবকে দেয়া হলেও আটক করতে দেখা যায়নি। শুনেছি পুলিশ সুপার ঘুষ খায়না। তবে এদেরকে ধরে না কেন? আর পুলিশ সুপারের নির্দেশে রাতে যাকেই রাস্তায় পাচ্ছে কিংবা দোকানে পাচ্ছে তাদেরকেই ধরে নিয়ে যাচ্ছে। আমরা কোন দেশে বাস করছি। আশা করছি পুলিশ সুপার সাধারন মানুষের কষ্ঠের কথা শুনবেন এবং জরুরী অবস্থা তুলে নিবেন।
এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান জানান, দেশে কোন জরুরী অবস্থা চলছে না। পুলিশ কাউকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করতে পারে না। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ সুপারের সাথে কথা বলব। এ ব্যাপারে  পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিপিএম জানান, কোন মানুষকে হয়রানী করা যাবে না। তবে  লাইসেন্স বিহীন মোটরসাইকেল,সিএনজিকে আটক করা হচ্ছে। কোথাও আমার কোন পুলিশ কর্মকর্তা অতিউৎসাহী হয়ে উঠলে আমাকে জানাবেন। সাধারন মানুষ শান্তি থাকুক সেটাই আমার প্রত্যাশা। এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ-৪ আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ জানান, দেশে কোন জরুরী অবস্থা বিরাজ করছে না। তবে পুলিশ কোন সাধারন মানুষকে হয়রানী করার প্রমান পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • 48
    Shares




পুরানো সংবাদ

Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


© All rights reserved © 2017 sylhetprotidin.com