শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:২০ অপরাহ্ন


গোটা নগরীই যেন একটি অবৈধ স্ট‍্যান্ড!

গোটা নগরীই যেন একটি অবৈধ স্ট‍্যান্ড!

ছবি - রেজা রুবেল

  • 651
    Shares

মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম::
নগরীর মোড়ে মোড়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ সিএনজি চালিত অটোরিকশা ষ্ট‍্যান্ড। নগরীর প্রায় সবগুলো পয়েন্ট এখন একেকটা অটোরিকশা ষ্ট‍্যান্ডে পরিণত হয়েছে। তিন পথের একটি মুখ পেলেই সেখানে বসানো হচ্ছে অবৈধ স্ট‍্যান্ড।

এসব অবৈধ ষ্ট‍্যান্ড আর যত্রতত্র পার্কিংয়ের কারনে কারণে নগরীতে সব সময় যানজট লেগেই থাকে। যানজটে নগরবাসীকে চরম ভোগান্তির শিকার হলেও কর্তৃপক্ষ এসব দেখেও রয়েছেন ‘দিবানিন্দ্রায়’। অবৈধ ষ্ট‍্যান্ড উচ্ছেদে ট্রাফিক বিভাগ ও সিটি কর্পোরেশন মাঝে মধ্যে লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করলেও পরক্ষণেই আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, বিশেষ করে নগরীর নাগরী চত্বর, সিটি পয়েন্ট (কামরান চত্ত্বর), কোর্ট পয়েন্ট, আম্বরখানা, ওসমানী মেডিক‍্যাল কলেজ হাসপাতালের ইমার্জেন্সি গেইট, জিতু মিয়ার পয়েন্ট, মদীনা মার্কেট, রিকাবী বাজার পয়েন্ট, টুকের বাজার, টিলাগড় পয়েন্ট, ক্বীনব্রিজের উত্তর ও দক্ষিণ মুখ, কাজির বাজার ব্রিজের উত্তর ও দক্ষিণ মুখ, চন্ডিপুল পয়েন্ট, হুমায়ুন রশিদ চত্ত্বর সহ প্রায় সব কটি পয়েন্টেই অবৈধ সিএনজি চালিত অটোরিকশা ষ্ট‍্যান্ড গড়ে তোলা হয়েছে। অবস্থা দৃষ্টে মনে হয় গোটা নগরীই যেন একটি সিএনজি অটোরিকশার স্ট‍্যান্ড।

যত্রতত্র এসব অবৈধ ষ্ট‍্যান্ড গড়ে উঠার ফলে পথচারীরা যেমন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন, তেমনি যাত্রী সাধারণ হেনাস্থার কবলে পড়ছেন। বিশেষ করে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের ইমার্জেন্সি গেইটে রোগী ও দর্শনার্থীরা পড়েন মারাত্মক বেকায়দায়। এই সমস্যা গুলো যেন দেখার কেউ নেই।

অনুসন্ধানে জানা যায়, অধিকাংশ সিএনজি অটো রিকশা চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই এমনকি নেই গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন। কোন কোন চালক জড়িয়ে পড়েছে ছিনতাইকারী চক্রের সাথে। বহুমুখী সমস্যায় জর্জরিত এই সেক্টরে তাদের বিরুদ্ধে ব‍‍্যবস্থা নেওয়ার যেন কেউ নেই। নগরীর অভ‍্যন্তরে পরিবহন সেক্টরে শৃংখলা ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন সচেতন নগরাসী।

ক্বীন ব্রিজের দক্ষিণ মোড়ে কথা হয় অটোরিকশা যাত্রী কলিম মিয়ার সাথে, তিনি জানান- পুলের মুখ থেকে চন্ডিপুল ভাড়া ৫ টাকা, তবে কোন সিএনজি অটোরিকশা ১০ টাকার কম যেতে চায় না। করোনা মহামারির কারণে সরকার ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করার পর চালকরা ডাবল নেয়া শুরু করে, সরকার আগের ভাড়া ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দিলেও সিলেটের অনেক চালকরা এখনো নিজেরাই ভাড়া বৃদ্ধি করে চলছেন।

নগরীতে অবৈধ ষ্ট‍্যান্ড উচ্ছেদের বিষয়ে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার জ্যোতির্ময় সরকার সিলেট প্রতিদিনকে বলেন- ‘প্রতিনিয়ত উচ্ছেদ অভিযান চলছে, সিসিকও আমাদের সাথে কাজ করছে। এ অভিযান অব‍্যাহত থাকবে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী সিলেট প্রতিদিনকে বলেন- এ বিষয়ে সম্প্রতি পুলিশের সাথে সিসিকের বৈঠক হয়েছে। ১৭ সেপ্টেম্বর অভিযানের কথা ছিলো, কিন্তু অনিবার্য কারণ বশত অভিযানটি স্থগিত করা হয়েছে। তবে অচিরেই অভিযান পরিচালনা করা হবে।


  • 651
    Shares






© All rights reserved © 2017 sylhetprotidin.com